Friday , December 6 2019
ব্রেকিং নিউজ :

Home / খেলাধুলা / দ্বাদশ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচটি ইতিহাসের সেরা হলেও নিন্দিত হয়ে থাকবে আম্পায়ার!

দ্বাদশ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচটি ইতিহাসের সেরা হলেও নিন্দিত হয়ে থাকবে আম্পায়ার!

খােলাবাজার ২৪,সোমবার ,১৫জুলাই,২০১৯ঃ ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত সদ্য সমাপ্ত দ্বাদশ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচটি ইতিহাসের সেরা হলেও নিন্দিত হয়ে থাকবে অনেক কারণে। তার মধ্যে বাজে বা ভুল আম্পায়ারিং অন্যতম। আলিম দার, কুমার ধর্মসেনার মতো তথাকথিত ‘এলিট প্যানেলের’ আম্পায়াররা নিন্দনীয় সব ভুল সিদ্ধান্ত দিয়েছেন এ বিশ্বকাপে।

গ্রুপ পর্ব ও সেমিফাইনালের ম্যাচ থেকে শুরু করে রোববার লর্ডসে ঐতিহাসিক ফাইনাল ম্যাচেও ভুল সিদ্ধান্ত দিয়েছেন কুমার ধর্মসেনা। ইংল্যান্ডের জয়ের পর এই লঙ্কান আম্পায়ারের সমালোচনায় মেতেছে গোটা বিশ্ব। সাবেক খ্যাতিমান আম্পায়ার সাইমন টাফেলও সমালোচনা করেছেন ধর্মসেনার।

এদিন ইংল্যান্ড প্রথমবারের মত শিরোপা জিতলেও নিউজিল্যান্ডের কপাল পুড়েছে ইংল্যান্ডের ইনিংসের শেষ ওভারের চতুর্থ বলে। ট্রেন্ট বোল্টের করা ওই ওভারে স্ট্রাইকিং প্রান্তে ছিলেন বেন স্টোকস। প্রথম দুই বল ডটের পর তৃতীয় বলে ছক্কা। চার নম্বর বলটি ডিপ মিড উইকেটে পাঠিয়েই দৌঁড় শুরু করেন স্টোকস।

মার্টিন গাপটিলের থ্রো দূর্ভাগ্যক্রমে স্টোকসের ব্যাটে আঘাত করে থার্ড ম্যান দিয়ে চলে যায় বাউন্ডারিতে। এর আগেই দুই বার প্রান্ত বদলের চেষ্টা করেন স্টোকস এবং আদিল রশিদ। আম্পায়ার ধর্মসেনা ওই বলে ৬ রান ঘোষণা করেন! এই ৬ রান নিয়েই ক্রিকেটবিশ্বে চলছে তুমুল বিতর্ক।

আইসিসির পাঁচবারের বর্ষসেরা আম্পায়ার সাইমন টাফেল মনে করেন, ধর্মসেনার এমন সিদ্ধান্ত পরিস্কার ভুল এবং আইসিসির আইন পরিপন্থী। তার যুক্তি, আইসসিসির আইনের ১৯.৮ ধারা অনুযায়ী, ওভার থ্রোতে বাউন্ডারি হয়ে গেলে আগের সম্পন্ন করা রানই শুধুমাত্র যোগ হবে।

অর্থাৎ গাপটিল বল ছোড়ার আগে স্টোকস-রশিদ যে রান নিয়েছেন, সেই রানই যোগ হবে। প্রথম রান তারা সম্পন্ন করলেও দ্বিতীয় রান সম্পন্ন করেননি। তাই পরের সেই রানটি যোগ হওয়ার সুযোগ নেই।

টাফেল বলেন, ‘এটা পরিস্কার ভুল সিদ্ধান্ত; ভুল বিশ্লেষণ। আইসিসির আইনের স্পষ্ট লংঘন। আইন অনুযায়ী ওই বলে ইংল্যান্ডের ৫ রান পাওয়া উচিত ছিল।’ সেক্ষেত্রে ওই বলে ১ রান কম হলে হয়তোবা বিশ্বচ্যাম্পিয়নের মুকুট উঠত কেন উইলিয়ামসনদেরই মাথায়। কিন্তু সেটা তো হয়নি।

তাইতো দুর্দান্ত ক্রিকেট উপহার দিয়েও নিজেদেরকে দুর্ভাগ্যের শিকার বলেই মানছেন কিউইরা। যে দুর্ভাগ্যের যেন শেষ নেই। টানা দু’বার ফাইনালে উঠেও রানার-আপ হয়েই সান্ত্বনা পেতে হবে আগামী চার বছরের জন্য।

Print Friendly, PDF & Email

About kholabazar 7x24