Mon. May 17th, 2021
খােলাবাজার২৪, শনিবার, ২৭ র্মাচ, ২০২১ইংঃ নীলফামারী জেলায় বাংলাদেশ জামাতি ইসলাম টুপামারী ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে স্বাধীনতার ৫০ বর্ষপূর্তি পালন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ৫নং টুপামারী ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ মাহমুদুল হাচান মাসুম।বিষয়টি যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ হলে নিমিষে ছড়িয়ে পড়ে।তার এই কর্মকাণ্ডে অত্র ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সহ সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীর মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে এবং সেচ্ছা সেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে মাসুম কে বহিস্কৃার দাবী করেন।
গত ২২/০৩/২০২১ ইং তারিখ রোজ রবিবার বাংলাদেশ জামাতি ইসলাম টুপামারী ইউনিয়ন শাখার উদ্যোগে এতিম ও দুস্থদের মাঝে খাদ্য ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়।
উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নীলফামারী জেলা জামাতের আমির মোঃ আব্দুর রশিদ।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ৫নং টুপামারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জনাব মছিরত আলী শাহ্ ফকির সহ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ কারী আব্দুল আজিজ ও মাহামুদুল হাচান মাসুম।সভাপতিত্বে করেন মোঃ আব্দুল খালেক আমির টুপামারী ইউনিয়ন শাখা।
উক্ত বিষয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ টুপামারী ইউনিয়ন শাখার সভাপতি বাবু পরেশ চন্দ্র বলেন জামাত একটি নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন।জামাতের অনুষ্ঠানে টুপামারী ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুম উপস্থিত হয়ে দলীয় এবং সাংগঠনিক নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছে।তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী সেচ্ছা সেবক লীগ নীলফামারী জেলা ও সদর উপজেলা শাখার নেতৃবৃন্দদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ নীলফামারী সদর উপজেলা শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং আওয়ামী যুবলীগের টুপামারী ইউনিয়ন শাখার সভাপতি মোঃ আবুল কাশেম শাহ্ অভিযোগ করেন অত্র ইউনিয়নে ষড়যন্ত্রের শেষ নেই।তিনি বলেন বাংলাদেশ আওয়ামী সেচ্ছা সেবক লীগের সাধারন সম্পাদক মাসুম দলের ভাবমূতি ক্ষুণ্ণ করছে।একজন দায়িত্বশীল নেতার কাছ থেকে এই রকম কর্মকাণ্ড আশা করা যায় না।
তিনি আরো বলেন গত ২৯শে অক্টোবর ২০২০ তারিখ ৫নং টুপামারী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে টুপামারী ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুম সহ অনেকেই নিজ স্বার্থে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত নৌকা মার্কার প্রার্থীর বিপক্ষে কাজ করেছে।
তাকে বাংলাদেশ আওয়ামী সেচ্ছা সেবকলীগ টুপামারী ইউনিয়ন শাখার সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে অব্যবহিত ও দল থেকে বহিষ্কারের জোর দাবী করেন।অত্র ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মকছেদুল ইসলাম এবং যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান রতন এই কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার জানান।তারা বলেন দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য তাকে দ্রুত দল থেকে বহিষ্কার করা হোক।
বাংলাদেশ সেচ্ছা সেবকলীগ টুপামারী ইউনিয়ন শাখার সাধারন সম্পাদক মাসুম এ বিষয় দুঃখ প্রকাশ করে বলেন আমি ষড়যন্ত্রের শিকার।টুপামারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মছিরত আলী শাহ্ ফকির সাহেব আমাকে ফোন দিয়ে সেখানে নিয়ে যায়।