Friday , November 29 2019
ব্রেকিং নিউজ :

Home / শীর্ষ সংবাদ / কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন লিঃ এর নামে মাতলুব আহমদ-এর হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের চেষ্টা-২

কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন লিঃ এর নামে মাতলুব আহমদ-এর হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের চেষ্টা-২

খােলাবাজার২৪, শুক্রবার, ২৯নভেম্বর, ২০১৯ঃ অনুসন্ধানী প্রতিবেদন-২ঃ কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন লিঃ এর নামে কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের হাজার কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের চেষ্টা চালাচ্ছে প্রভাবশালী ব্যবসায়ী এফবিসিসিআই-এর সাবেক সভাপতি   আব্দুল মাতলুব আহমদ। তিনি তার মালিকানাধীন মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ-এর নামে কালিয়াচাপড়া সুগার মিলটি অবৈধভাবে ক্রয় করেন। টেন্ডার প্রক্রিয়ার নিয়ম অনুযায়ী কোন দরপত্র আহবান করলে কমপক্ষে ৩ (তিনটি) সিডিউল বিক্রি করার নিয়ম রয়েছে। যদি কোন দরপত্র আহবান করার পরে তিনটি সিডিউল বিক্রয় না হয় সেক্ষেত্রে পুনরায় দরপত্র বিজ্ঞিপ্তি আহবান করার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু এক্ষেত্রে  প্রাইভেটাইজেশন কমিশন কালিয়াচাপড়া সুগার মিলটি বিক্রয়ের ক্ষেত্রে দরপত্র আহবান প্রক্রিয়ার নিয়ম নীতি তোয়াক্কা করেননি। তৎকালীন প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সচিব ও টেন্ডার কমিটি ব্যক্তিগত স্বার্থে অবৈধভাবে টেন্ডার প্রক্রিয়ায় মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিমিটেডকে টেন্ডার পাইয়ে দেন।

১৯৯৬ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পরে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা রুগ্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোকে সচল করে বেকারত্ব দূর করার লক্ষ্যে যাচাই বাছাই করে সরকার প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের মাধ্যমে রুগ্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোকে পুনরায় চালু করার লক্ষ্যে শর্ত সাপেক্ষে সরকার রুগ্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোকে বেসরকারি খাতে দেওয়ার সিদ্ধন্ত নেয়। এরই ধারাবাহিকতায় শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন-এর কিশোরগঞ্জ পাকুন্দিয়ায় অবস্থিত ১৮৪.০৩ একর জমির উপরে কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের ১০১৬১ মেট্রিক টন চিনি (বার্ষিক) উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন মিলটি আরো অধিক উৎপাদনের লক্ষ্যে ও বেকারত্ব দূরীকরণের লক্ষ্যে সরকার মিলটি বেসরকারি খাতে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। পরে ১১-১১-১৯৯৯ইং সালে প্রাইভেটাইজেশর কমিশন মপব/প্রা: বো:/জস/৪/৯৭/৯৭৪ স্মারকে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহবান করে।

১১-১১-১৯৯৯ইং সালের এই আন্তর্জাতিক দরপত্র বিজ্ঞপ্তি আহবানে রহস্যজনক কারণে মাত্র ‍দুইটি প্রতিষ্ঠানের সাড়া পরে। মেসার্স মাল্টি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল এবং মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ নামের দুটি প্রতিষ্ঠান এই হাজার কোটি টাকা মূল্যের শিল্প প্রতিষ্ঠানের টেন্ডার সিডিউল ক্রয় করে।

টেন্ডার প্রক্রিয়ার নিয়ম অনুযায়ী কোন দরপত্র আহবান করলে কমপক্ষে ৩ (তিনটি) সিডিউল বিক্রি করার নিয়ম রয়েছে। যদি কোন দরপত্র আহবান করার পরে তিনটি সিডিউল বিক্রয় না হয় সেক্ষেত্রে পুনরায় দরপত্র বিজ্ঞিপ্তি আহবান করার নিয়ম রয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, প্রাইভেটাইজেশন কমিশন কালিয়াচাপড়া সুগার মিলটি বিক্রয়ের ক্ষেত্রে দরপত্র আহবান প্রক্রিয়ার নিয়ম নীতি তোয়াক্কা না করে তৎকালীন প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের সচিব ও টেন্ডার কমিটি ব্যক্তিগত স্বার্থে টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ করেন। মেসার্স মাল্টি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল প্রতিষ্ঠানটি সর্বোচ্চ দরপত্রদাতা এবং মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠান। স্বাভাবিক কারণেই প্রথম দরপত্রদাতার কাজ পাওয়ার কথা। এক্ষেত্রে প্রাইভেটাইজেশন কমিশন প্রথম দরপত্র প্রতিষ্ঠানকে কাজ না দিয়ে অবৈধভাবে দ্বিতীয় দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠানকে কাজ পাইয়ে দেন।

এই মিলটি ক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রথম দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স মাল্টি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল তার সিডিউলে মিলটির দাম ৪,১২,৯৫,২৯৪/- টাকা প্রস্তাব করে। দ্বিতীয় দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ তার সিডিউলে মিলটির দাম ৪,০১,০০,০০০/- টাকা প্রস্তাব করে। প্রাইভেটাইজেশন কমিশন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে প্রথম দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠানের কাছে এই সুগার মিলটি বিক্রয় না করে দ্বিতীয় দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রয় করে।

অনুসন্ধানে আরো বেরিয়ে আসে, দ্বিতীয় দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠানের কর্ণদ্বার আব্দুল মাতলুব আহমেদের সাথে প্রাইভেটাইজেশন কমিশন সমঝোতা করে ১২-০৩-২০০০ইং সালে সিএস/কে-১২/২০০০ নং পত্রের ৪৯,০০,০০০/- টাকা নতুন করে সিডিউলের সাথে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে সংযুক্ত করে।

পরবর্তীতে এ বিষয়ে প্রথম দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স মাল্টি ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের মালিক বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম মোস্তাফিজুর রহমান ০৩-০৩-২০০৮ইং তারিখে মতিঝিল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন যাহার নং ২২৪।

প্রাইভেটাইজেশন কমিশন দ্বিতীয় দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠান মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ এর ১২-০৩-২০০০ইং তারিখের সিএস/কে/১২/২০০০ নং একটি পৃথক পত্র অবৈধভাবে আমলে নিয়ে ৪,৫০,০০,০০০/- টাকা প্রস্তাব দেখিয়ে কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের টেন্ডার প্রক্রিয়ার বিক্রয়ের ক্ষেত্রে মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ কে প্রথম দরপত্রদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেখিয়ে উপ-পরিচালক (রাঃওপ্রঃ) মোস্তফা কামাল হায়দার স্বাক্ষরিত নথি নং মপবি/ প্রাঃকঃ/রঃপ্রঃ/ কালিয়াচাপড়া (২)-৩৩-২০০০/৭৪ তারিখ ১৫-১০-২০০০ইং লেটার অব ইনটেন্ট (এলওআই) আহবান করে। যা বাংলাদেশের দরপত্র প্রক্রিয়া আইনের সম্পূর্ণ লঙ্ঘন।

মিলটি বিক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রাইভেটাইজেশন কমিশন কর্তৃক টেন্ডার প্রক্রিয়ায় কিছু শর্ত রয়েছে। আবদুল মাতলুব আহমেদের প্রতিষ্ঠান মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ দরপত্রের শর্তাবলীর তোয়াক্কা না করে ধারাবাহিকভাবে শর্ত ভঙ্গ করে। মিলটি বিক্রয়ের দরপত্রের শর্তাবলীর ৭.৩ ধারায় উল্লেখ আছে ক্রেতা প্রতিষ্ঠান এই জমিতে অন্য কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন করতে পারবে না বা অন্য কোনভাবে ব্যবহার করতে পারবে না। দরপত্রের ৯ (ঘ) ধারায় উল্লেখ আছে ক্রয়ের শর্ত লঙ্ঘন করলে প্রাইভেটাইজেশন কমিশন বিক্রয়কৃত প্রতিষ্ঠানের দখল পুনঃফেরত নিবে। দরপত্রের ৯ (ঙ) ধারায় উল্লেখ আছে শর্ত লঙ্ঘন করলে প্রাইভেটাইজেশন কমিশন প্রয়োজন অনুসারে অন্য যে কোন রুপ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করতে পারবে।

প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের শর্ত লঙ্ঘন করে কালিয়াচাপড়া সুগার মিল ক্রয়কৃত প্রতিষ্ঠান মেসার্স সেন্ট্রাল প্রপার্টিজ লিঃ সুগার মিলটির সকল যন্ত্রপাতি এবং মিলের মধ্যে থাকা প্রায় ১০ কিঃমিঃ ট্রেন লাইনের ইস্পাত বিক্রয় করে সুগার মিলটির চিহ্ন মুছে ফেলে এবং হাতিয়ে নেয় প্রায় শত কোটি টাকা।

কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের ১৮৪.০৩ একর জমি আত্মসাৎ করার জন্যে ২০১৭ইং সালের ৩ জুলাই বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল (বেজা) থেকে ১১-১১-১৯৯৯ইং তারিখে প্রাইভেটাইজেশন কমিশন কর্তৃক কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের ক্রয়কৃত জায়াগায় প্রাইভেটাইজেশন কমিশনের দেওয়া শর্ত ভঙ্গ করে কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের জায়গায় কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন লিঃ এর নামে অনুমতি নেয় আবদুল মাতলুব আহমেদ।

বিএনপির ডোনার হিসেবে খ্যাত আবদুল মাতলুব আহমেদ হঠাৎ করে তার খোলস বদল করে রাতারাতি বড় আওমীলীগপন্থী ব্যবসায়ী হয়ে বিনা ভোটে এফবিসিসিআই এর সভাপতি হন এবং একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার স্ত্রীর নামে নমিনেশন কনফার্ম করেন।কুমিল্লার রাজনীতিতে নতুন মুখ এ নারীর মনোনয়ন চূড়ান্ত হওয়ার পর জেলাজুড়ে ব্যাপক তোপের মুখে পড়েন সেলিমা আহমেদ মেরী। কুমিল্লা-২ (হোমনা-তিতাস) আসনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতা হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ আব্দুল মজিদ, তিতাস উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান পারভেজ হোসেন সরকার, তিতাস উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য আবুল কালাম আজাদ, আওয়ামী লীগ নেতা সারোয়ার হোসেন বাবু, মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলী, ডালিম সরকার, এনামুল হক ইমন ও মজিবর রহমান এই সকল নেতাদের পরাস্ত করেন এবং তিনি সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেশের উন্নয়ন ও বেকারত্ব দূরীকরণের লক্ষ্যে সারাদেশে ১০০ টি ইকোনমিক জোন করার ঘোষণা দেন। কৌশলী এই ব্যবসায়ী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সারদেশে ১০০ টি ইকোনমিক জোনের ঘোষণাকে কাজে লাগিয়ে কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের ১৮৪.০৩ একর জায়গা আত্মসাৎ করার উদ্দেশ্য ০৩ এপ্রিল ২০১৯ইং তারিখে সাইনবোর্ড সর্বস্ব কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দিয়ে ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে উদ্বোধন করিয়ে কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের ১৮৪.০৩ একর জায়গা নিজের দখলে নেয়ার কাজটি সম্পন্ন করেন।

এ বিষয়ে পাটুয়াভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শাহাবুদ্দিন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দিয়ে এই কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের জায়গায় মাতলুব আহমেদ কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন (কেইজেড) ০৩ এপ্রিল ২০১৯ইং তারিখে ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে উদ্বোধন-এর পর থেকেই এই মিলের ২০০ একর জমির উপরে পৃথক পৃথক প্লট তৈরি করে বিক্রয় শুরু করেছেন। এই ব্যবসায়ী প্রায়ই এখানে হেলিকপ্টারে করে বড় বড় লোকজন নিয়ে আসে প্লট বিক্রি করার উদ্দেশ্য। বর্তমানে এই কিশোরগঞ্জ ইকোনমিক জোন লিঃ এর ভিতরে প্রতারণা ছাড়া কিছু্ই নেই, আছে শুধু নিটল টাটা মটরস ড্রাইভিং ট্রেনিং  নামে একটি স্কুল। তবে এখানে কোন ড্রাইভারকে প্রশিক্ষণ দেয় হয় না।

শিল্পবান্ধব দেশপ্রেমিক সরকার প্রধান শেখ হাসিনার কাছে পাকুন্দিয়া কিশোরগঞ্জ এলাকার মানুষের প্রাণের দাবি, কালিয়াচাপড়া সুগার মিলের ১৮৪.০৩ একর জায়গা বিএনপিপন্থী ব্যবসায়ী আবদুল মাতলুব আহমেদের হাত থেকে উদ্ধার করে এই জায়গা সরকারের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এলাকার জনগনকে সম্পৃক্ত করে পুনরায় শিল্প প্রতিষ্ঠান তৈরির মাধ্যমে এলাকার বেকারত্ব দূর করে দেশের উন্নয়ন অব্যাহত রাখবেন।

Print Friendly, PDF & Email

About kholabazar 24