Mon. May 17th, 2021

খােলাবাজার২৪, মঙ্গলবার, ২০এপ্রিল ২০২১ঃ সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন সঙ্গীতশিল্পী ফরিদা পারভীন। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে তিনি রাজধানীর ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত ১২ এপিল ভর্তি হয়েছিলেন।

আজ মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) সকালে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পান তিনি। করোনা সংক্রমণের পাশাপাশি ফরিদা পারভিন দীর্ঘদিন ধরে কিডনির জটিলতা, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপসহ থাইরয়েড জটিলতায় ভুগছিলেন।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. আশীষ কুমার চক্রবর্তী জানান, ফরিদা পারভীন এখন অনেকটাই সুস্থ। করোনার কোনো উপসর্গ এখন আর তার মধ্যে নেই। তার অক্সিজেন মাত্রাও স্বাভাবিক আছে। এই অবস্থায় বাসায় থেকে আইসোলেশনে থাকবেন তিনি। সর্বোপরি সুস্থ আছেন ফরিদা পারভীন। আশা করি, খুব শীঘ্রই তিনি স্বাভাবিক জীবনে ফিরবেন।

তার সুস্থতায় পরামর্শ দিয়েছেন কিডনী রোগ ও ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ ডা. রানা মোকাররম হোসেন, বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ ডাঃ গৌতম সেন, ইনটেনসিভ কেয়ার মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. মোহাম্মদ আনুল হানান এবং ডা. মেহদি হাসান।

উল্লেখ্য, লালনের গান গেয়ে দেশে-বিদেশে খ্যাতি পেয়েছেন ফরিদা পারভীন। ১৯৫৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর নাটোর জেলার সিংড়া থানার শাওল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

জন্ম নাটোরে হলেও বড় হয়েছেন কুষ্টিয়ায়। ১৯৬৮ সালে রাজশাহী বেতারের তালিকাভুক্ত শিল্পী হিসেবে নজরুল সঙ্গীত গাইতে শুরু করেন। পরবর্তীতে ১৯৭৩ সালের দিকে দেশাত্মবোধক গান গেয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। সাধক মোকসেদ আলী শাহের কাছে লালন সঙ্গীতের তালিম নেন ফরিদা পারভীন।

১৯৮৭ সালে সঙ্গীতাঙ্গনে বিশেষ অবদানের জন্য একুশে পদক পান ফরিদা পারভীন। এছাড়া ২০০৮ সালে তিনি জাপান সরকারের পক্ষ থেকে ‘ফুকুওয়াকা এশিয়ান কালচার’ পুরস্কারও অর্জন করেন। ১৯৯৩ সালে সেরা প্লে-ব্যাক গায়িকা হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি।

শিশুদের লালন সঙ্গীত শিক্ষায় ‘অচিন পাখি স্কুল’ নামে একটি গানের স্কুল গড়ে তুলেছেন তিনি।