বৃহঃ. ফেব্রু ২, ২০২৩
Advertisements

অনলাইন ডেস্কঃ বঙ্গবন্ধু পরিষদের ১৫ বছরের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের ছবি নিয়ে শেখ ফোজিত বাবুর দুই দিনব্যাপী আলোকচিত্র প্রদর্শনী শুরু হয়েছে। এসময় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন বার্তার লিফলেট বিতরণ করা হয়।

রবিবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক রাজনৈতিক উপদেষ্টা, সাবেক সংসদ সদস্য, ভাষাসৈনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি প্রয়াত ডাক্তার এস এ মালেক স্মরণে এই আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে।

আজকের প্রদর্শনী ও আলোচনা সভার প্রধান অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। আলোচনা সভায় ডাক্তার এস এ মালেক এর জীবন, দর্শন, সাংগঠনিক দক্ষতা ও কর্মময় জীবন নিয়ে আলোচনা করা হয়।

প্রধান অতিথি আব্দুল মোমেন বলেন, ‘ডা. এস. এ মালেক বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উদ্বুদ্ধ এমন এক আলোকিত মানুষ ছিলেন যার শূন্যতা পূরণ হয়ার নয়। তাই তাঁর স্মরণে আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে বঙ্গবন্ধুর নির্ভীক সৈনিক ড: ওয়াদুদের অনুরোধ আমি উপেক্ষা করতে পারিনি।’

সভাপতির বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো আখতারুজ্জামান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু তার চিন্তা ও কর্মে যে অসাম্প্রদায়িক চেতনা, নীতি-আদর্শ, মানুষের প্রতি মমত্ববোধ ও ভালোবাসার অনুশীলন করেছেন তার সেবক হিসাবে ড. মালেক নতুন প্রজন্মের কাছে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবেন।’

প্রধান আলোচক বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আ ব ম ফারুক বলেন, ‘ডাঃ মালেক ছিলেন বঙ্গবন্ধুর মানবপ্রেম ও কল্যাণকামী আদর্শ প্রচারের এক নির্ভীক সংগঠক ও যোদ্ধা।’

বিশেষ অতিথি ফিকামলি তত্ত্বের জনক, বাংলাদেশ মনোবিজ্ঞান সমিতির প্রধান পৃষ্ঠপোষক, বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আবদুল ওয়াদুদ বলেন, ‘ডাক্তার এস এ মালেক ছিলেন এক সততার মহামানব। প্লেইন লিভিং অ্যান্ড হাই থিংকিং পারসন। তিনি ছিলেন মুজিব আদর্শের জন্য আপোষহীন, নিবেদিতপ্রাণ এক সুদক্ষ সংগঠক। রাজনীতিতে সততা ও শিষ্টাচার কি জিনিস যা তার থেকে শেখা যায়।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আ কা ম সরওয়ার জাহান বাদশা, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অফ বাংলাদেশের উপাচার্য বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ড. আবদুল মান্নান চৌধুরী, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক ড. মো মশিউর রহমান, ডুয়েট এর উপাচার্য ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক ড. মো হাবিবুর রহমান, চাঁদপুর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাছিম আখতার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ এর প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফার্মেসি বিভাগের চেয়ারম্যান ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. ফিরোজ আহম্মেদ, মানিকগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট আব্দুস সালাম, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মনোরঞ্জন ঘোষাল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত এস এ মালেক এর পুত্র ডা. শেখ আব্দুল্লাহ আল মামুন।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বঙ্গবন্ধু পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান লালটু। অনুষ্ঠানের শুরুতে ড. আব্দুল ওয়াদুদ সম্পাদিত প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন বার্তা সম্বলিত লিফলেট উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি এ কে আব্দুল মোমেন। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথিরা এবং দর্শনার্থীরা বঙ্গবন্ধু পরিষদের ১৫ বছরের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের ছবি নিয়ে শেখ ফোজিত বাবুর আলোকচিত্র প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন।